(প্রেস বিজ্ঞপ্তি)
বিশাল ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে চললে দেশ শ্রীলঙ্কার মত দেউলিয়া হতে পারে
-গোলাম মোহাম্মদ কাদের
ঢাকা-০৭ এপ্রিল বৃহস্পতিবার ২০২২ : জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা জনবন্ধু গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি বলেছেন, সারা বিশ্বই এখন একটি ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। কিছুদিন আগে হঠাৎ করে দেখা গেল শ্রীলঙ্কার মতো একটি দেশ যাদের শিক্ষিতের হার ৯৫ শতাংশ। যারা অনেক আগেই মধ্যম আয়ের দেশ হয়েছে। তাদের রিজার্ভ প্রচুর ছিল। লোক সংখ্যা অনেক কম। মাত্র দুই কোটি। কিন্তু এই সমৃদ্ধশালী দেশ হঠাৎ করে দেউলিয়া হয়ে গেল। যা নিয়ে আমি কালকেও সংসদে কথা বলেছি।
তিনি বলেন শ্রীলংকা নিয়ে আমাদের চিন্তার বিষয় আছে, আমি মনে করি যে বিষয়টি সরকার যেভাবে দেখছেন, আরো বেশি গভীরভাবে দেখা প্রয়োজন। ইউক্রেন যুদ্ধ ও বিভিন্ন কারণে বিশ্ব বাজারে বিভিন্ন পণ্যের দাম বেড়ে যাচ্ছে। আমি যতোটুকু খবর পেয়েছি, গেলো বছর আমদানি ব্যয় হয়েছে ১০০ বিলিয়ন ডলার। যা কখনোই ৬০ বিলিয়ন ডলারের বেশি ছিলো না। এখন ৪০ বিলিয়ন ডলার ব্যয় বেরেছে। যা আমাদের রিজার্ভ থেকে কমতে থাকবে। এভাবে রিজার্ভ কমতে থাকলে দেশকে ভয়াবহ পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হবে। শ্রীলঙ্কার মত দেউলিয়া হতে পারে দেশ। দেশের মানুষ দুর্ভিক্ষদুর্ভিক্ষের কবলে পড়তে পারে।
তিনি বলেন, আমরা অনেক বড় ঋণের বোঝা ঘাড়ে নিয়েছি। মেগা প্রজেক্ট এর নামে বিভিন্ন সূত্র থেকে বিভিন্ন ধরনের ঋণ গ্রহণ করেছি। অনেক সময় অনেক বেশি সুদে ঋণ নিয়েছি আমরা। অর্থনীতিবীদের বরাত দিয়ে জিএম কাদের বলেন, গত অর্থবছর পর্যন্ত বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ ছিল সাড়ে চার লক্ষ কোটি টাকার মতো। সব মিলিয়ে সাড়ে এগার লক্ষ কোটি টাকার মতো বর্তমান সরকারের এখন ঋণ রয়েছে। এই বছরও দেশি-বিদেশি এক লক্ষ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার জন্য একটা প্রাক্কলন করা হয়েছে। এই ঋণের বোঝা ঘাড়ে নিয়ে আমরা যদি সামনের দিকে অগ্রসর হতে থাকি এবং এই খরচগুলো যখন আমাদের করতে হবে তখন বাংলাদেশের দেউলিয়া হতে খুব বেশি সময় লাগবে না।
মেগা প্রজেক্ট করে, লক্ষ লক্ষ কোটি টাকা ঋণ করে, সেই ঋণের টাকা দিয়ে পোলাও খাওয়া দরকার ছিল না। আমাদের দরকার নিজের পায়ে দাঁড়ানোর। যাতে আমরা সঠিকভাবে চলতে পারি।
মেগা প্রকল্প প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, একসাথে পাঁচটা দশটা প্রকল্প হাতে নেওয়ার দরকার ছিল না। আমরা আস্তে আস্তে একটা একটা করে করতে পারতাম। যাতে করে আমরা সহনীয় অবস্থায় থাকতে পারতাম। এখন যে অবস্থা দাঁড়িয়েছে, তাতে শ্রীলঙ্কার মতো দেউলিয়া হতে বাংলাদেশের একটি আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।
নিজ বক্তব্যে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির কারণে বাংলাদেশের নিম্নবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত মানুষ চরম সংকটে পড়েছে বলে উল্লেখ করেন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় উপনেতা। তিনি বলেন, এমনিতেই জনজীবন দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির কারণে একটি খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছে। আমি সরকারকে ভর্তুকি দিয়ে রেশনিং সিস্টেম চালুর কথা বলেছিলাম। যা অতীতে দীর্ঘদিন আমাদের দেশে প্রচলিত ছিল। প্রচলিত থাকা সেই সিস্টেমটি আমাদের দেশে আবার পুন:র্জীবিত করা উচিত। পাশের দেশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের অনেক জায়গায় এই সিস্টেমটি এখনও প্রচলিত আছে। পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ এর দেশ পরিচালনার সময় গ্রামে রেশনিং ব্যবস্থা চালু করেছিলেন। অতিদরিদ্র, দরিদ্র ও মধ্যবিত্ত তিন ভাগে ভাগ করে সরকারকে রেশনিং ব্যবস্থা চালু করার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি। এইভাবে প্রতিটি মহল্লায় ডিলারের মাধ্যমে যদি আমরা খাদ্যদ্রব্য সহায়তা করতে না পারি, বাংলাদেশ যেমন দেউলিয়া হতে পারে আবার দেশের মানুষও দুর্ভিক্ষ অবস্থায় পড়তে পারে। তিনি সরকারকে এ বিষয়ে দৃষ্টি দেওয়ার জন্য আহ্বান জানান। ১ কোটি পরিবারকে খাদ্য দেয়ার মধ্য দিয়ে সরকারের দায়িত্ব এড়িয়ে যাওয়ার প্রবণতা লক্ষ্য করছেন বলে এ সময় উল্লেখ করেন তিনি।
আজ বিকেলে জাতীয় পার্টি মহানগর দক্ষিণ এর নব-নির্বাচিত কমিটির পরিচিতি সভা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতাকালে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা জনবন্ধু গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি এ কথা বলেন।
জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ এর সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত পরিচিতি অনুষ্ঠান ও ইফতার মাহফিল পরিচালনা করে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান এর উপদেষ্টা ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ এর সাধারণ সম্পাদক জহিরুল আলম রুবেল।
আরো বক্তৃতা করেন জাতীয় পার্টি মহাসচিব মোঃ মুজিবুল হক চুন্নু এমপি।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আব্দুল মান্নান, এ্যড মোঃ রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, নাজমা আক্তার এমপি, আলমগীর সিকদার লোটন, জহিরুল ইসলাম জহির।
খন্দকার দেলোয়ার জালালী
জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান এর
প্রেস সেক্রেটারি – ০২

error: Content is protected !!